যৌন নির্যাতনের অভিযোগে গ্রেপ্তার আইএমএফের প্রধানঃ এরশাদ আমার অনুপ্রেরনা

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) প্রধান দমিনিক স্ত্রস কানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। যৌন নির্যাতনের অভিযোগে গত শনিবার নিউইয়র্কে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়।
নিউইয়র্ক পুলিশের উপ-মুখপাত্র রায়ান সিসা সাংবাদিকদের জানান, স্ত্রস কানের বিরুদ্ধে যৌন অপরাধ, অবৈধভাবে আটকে রাখা ও ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়েছে। ৩২ বছর বয়সী এক নারীর অভিযোগের ভিত্তিতে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। অভিযোগে বলা হয়, নিউইয়র্কের একটি হোটেলের কক্ষে কান ওই নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। ওই নারী ওই হোটেলেরই কর্মী। গ্রেপ্তারের পর প্রথম রাতের রিমান্ডে তিনি অজানা অনেক তথ্য দিয়েছেন। তিনি বলেছেন লেজেহুমু এরশাদ তার আইডল, তার অনুপ্রেরনার উৎস।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, ৬২ বছর বয়সী কান শনিবার এয়ার ফ্রান্সের একটি ফ্লাইটে করে জন এফ কেনেডি আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে যাওয়ার প্রাক্কালে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের একজন কর্মকর্তা বলেন,‘কানকে গ্রেপ্তারের পর তাঁকে কিছু সময় আমাদের হেফাজতেই রাখি। পরে নিউইয়র্ক সিটি পুলিশ বিভাগের কাছে হস্তান্তর করা হয়।’ এনওয়াইপিডি রিমান্ডে অভিজ্ঞ লোক হিসাবে রেব এর একটি চৌকস দলকে আমন্ত্রন জানানোর কথা ভাবছে।

পুলিশ সূত্র জানায়, কান তাঁর মুঠোফোন এবং ব্যক্তিগত কিছু জিনিসপত্র হোটেল স্যুটে রেখেই তড়িঘড়ি করে বেরিয়ে গিয়ে প্যারিসগামী একটি বিমানে ওঠেন তিনি। বিমানটি ছাড়ার মিনিট দশেক আগে কানকে নামিয়ে আনা হয়। পুলিশ সূত্র জানায়, তারা জিজ্ঞাসাবাদে জানতে চেয়েছিলেন ৬২ বছর বয়সেও কিভাবে এত তেজ পান? এর জবাবে কান জানিয়েছেন এরশাদ ক্ষমতায় থাকা কালীন সময় থেকেই কান এরশাদকে ফলো করতেন। সে সময়ের এরশাদের ধর্ষকামীতা দ্বারা তিনি মারাত্নক প্রভাবিত। সেসময়ের আপাত যুবক এরশাদের প্রচুর লেডি কিল করার সাথে তিনি নিজের সাদৃশ্য টেনে নিজের কাজকে জাস্টিফাই করার চেষ্টা করেন। তিনি বলেন আসলে ঐ মহিলার ছিনালীপনা দেখে তিনি নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি। তিনি কেবলি ভাবছিলেন এরশাদ তার জায়গায় থাকলে কি করতেন?

ধর্ষনের আগে নিজেকে গুছিয়ে নিচ্ছেন কান

পুলিশ জানায়, দমিনিক কান শনিবার নিউইয়র্কের সোফিটেল হোটেলের একটি কক্ষে ওই হোটেলেরই একজন নারীকর্মীকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। ওই নারীকর্মী অভিযোগ করেন, তিনি দমিনিক কানের হোটেল স্যুটে প্রবেশ করলে কান তাঁর ওপর চড়াও হন। দ্য নিউইয়র্ক টাইমস ওই নারীকর্মীর বরাত দিয়ে জানায়, কক্ষ পরিপাটির কাজ করছিলেন তিনি। এ সময় কান তাঁকে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। এমএসএনবিসি টেলিভিশনের প্রতিবেদনে বলা হয়, ওই নারী কানের হোটেল স্যুট থেকে বেরিয়ে এসে বিষয়টি হোটেলের অন্য কর্মীদের জানান এবং পুলিশকে ফোন করেন। নারীকর্মী বলেন, “আমার কোনো দোষ নাই, আমি খুব শালীন লো স্কার্ট আর টাইট ভদ্র টপ্স পড়ে সামান্য কোমর দুলিয়ে মার্জিত ভাবে রুমে ঢুকেছিলাম”।

কানের বিরুদ্ধে ওঠা এ অভিযোগ সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করেনি আইএমএফ। তবে এক কর্মকর্তা অফ দ্যা রেকর্ড বলেছেন এরশাদের সংগ কিভাবে এই লোক পেল তা বড়ই কৌতুহল উদ্দীপক!
দমিনিক স্ত্রস কান ২০০৭ সাল থেকে আইএমএফের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৮ সালেও যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে। সেবার আইএমএফের উচ্চপদস্থ একজন নারী অর্থনীতিবিদের সঙ্গে এমন আচরণ করায় ক্ষমা চেয়েছিলেন কান। ১৯৬৭ সালে প্রথম বিয়ে করার পর আরও দুজনকে বিয়ে করেন কান। বর্তমান স্ত্রী সাংবাদিক অ্যান সিনক্লেয়ারকে বিয়ে করেন ১৯৯১ সালে। এএফপি।

Advertisements
%d bloggers like this: